খাবারের একটি রুটি বাঁচিয়ে করুন এই কাজ, পাবেন সমস্ত সমস্যা থেকে মুক্তি। জীবনে কখনো টাকার অভাব হবে না

0
626

আমাদের জীবনের রুটির খুবই মহত্ব আছে। এই রুটি যা আপনার খিদে মিটিয়ে থাকে তা আপনার ভাগ্য ও পরিবর্তন করতে পারে। হিন্দু ধর্মে এমন অনেক উপায় আছে যা করে যে কারোরই ভাগ্য পরিবর্তন হতে পারে। এরকমই রুটির ও কিছু উপায় আছে যার ফলে আপনার ও ভাগ্য পরিবর্তন হতে পারে। সর্বপ্রথম জেনে নিন যে খাদ্য কখন অপচয় করবেন না। যে রুটি কে আপনি ফেলে দেন সেই রুটিই কোন এক গরিবের খিদে মেটাতে পারে। প্রথমত বলে থাকি যে রুটকে কখনো ডাস্টবিনে ফেলবেন না। চলুন বলে ফেলি যে রুটি কি ভাবে আপনার ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারে।

ঘরের সুখ শান্তি:- রুটিন ঘরে সুখ শান্তি কে বজায় রাখতে ও ব্যবহার করা হয়। যদি আপনার ঘরে ঝামেলা হয়ে থাকে তো এই সহজ উপায়টির করুন। সর্ব প্রথমে প্রতিদিন সকালে আপনার ঘরে যে প্রথম রুটিতি হয়ে থাকে সেটিকে গরুর জন্য রেখে দিন। ফরে রাত্তিরে শেষ রুটিটি কুকুরের জন্য রেখে দিন।প্রতিদিন গরু এবং কুকুরকে যদি স্বচ্ছ রুটি খাইয়ে থাকেন তো আপনার ঘরের অশান্তি ও শেষ হয়ে যাবে।

Ad

রাহু কেতুর শান্তি :- যদি আপনার কুন্ডলী তে উপস্থিত রাহু এবং কেতু আপনাকে সমস্যায় ফেলে থাকে তো ওই পরিস্থিতি থেকে বেরোনোর জন্য রুটির উপায় সঠিক মনে হয়। এর জন্য প্রতিদিন রাতে শেষ রুটির মধ্যে সরষের তেল লাগিয়ে কালো কুকুর কে খাইয়ে দিন। এরূপ মান হয় যে ১৫ দিন নিয়মিত এটি করলে আপনি অবশ্যই লাভ পাবেন।

পিতৃ দোষ থেকে বাঁচুন:- পিতৃ দোষ থেকে বাচার জন্য ও রুটির ব্যবহার কার্যকরী। এটিকে আমাবস্যার রাতে করা উচিত। সর্ব প্রথমে রুটির সাথে সাথে ক্ষীর বানিয়ে নিন। এরপর রুটির মধ্যে ক্ষীর জড়িয়ে কাককে খাইয়ে দিন। এটি করার ফলে আপনি খুব শীঘ্রই লাভ পাবেন।

অসফলতা থেকে বাঁচুন :- যদি প্রত্যেক বার আপনার কাজ খারাপ হয়ে যাচ্ছে এবং আপনি প্রতিটি কাজের ক্ষেত্রেই অসফল হচ্ছেন তাহলে আপনি রুটির মধ্যে চিনি দিয়ে পিঁপড়ের দের খাওয়ান। এটি করার ফলে আপনার জীবন থেকে অসফলতা দূর হয়ে যাবে। আপনি আপনার প্রয়াসে সফল হতে পারবেন।

শাশুড়ি বৌমার সম্পর্কে জন্য:- অনেকবারই শুধুমাত্র ঘরের ঝগড়া বিবাদ দূর করার জন্য নয় বরং পারস্পরিক সম্পর্ক মজবুত করার জন্য ও রুটির উপায় সঠিক মানা হয়। সর্ব প্রথমে শনিবার দিন এর খেয়াল রাখবেন। এই দিনে প্রথম রুটি টিতে নিজের শাশুড়ির নাম কালো কালি দিয়ে লিখে নেবেন। এরপর এটিকে কালো কুকুর কে খাইয়ে দেবেন। এর ফলে শাশুড়ি বৌমার সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ হয়।

সন্তানের জন্য:- অনেক সময় সন্তানের উপর নজর লেগে থাকে এবং এরপর তারা নিজের খাদ্যের পরিমাণ কমিয়ে দেয়। যদি আপনার পরিবারে এমন কোন বাচ্চা থেকে থাকে যে খাদ্য কম পরিমাণে খেয়ে থাকে তো এটি হতে পারে যে তার উপর কারোর নজর পড়েছে। একটি রুটি নিয়ে তার উপর ১১ থেকে ২১ বার গুড় নিন। তারপরই এই রুটি টিকে কোন কুকুর কে খাইয়ে দিন। এর ফলে এই নজর দোষ কেটে যাবে এবং আপনার সন্তান ভালোভাবে খাদ্য খেতে পারবে।

ad

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here